শুক্রবার, ২৭শে জানুয়ারি, ২০২২ ইং, ভোর ৫:৩৬

মিলিটারি গ্রেড স্মার্টফোন আনছে নোকিয়া, পানির নিচেও চলবে ১ ঘণ্টা

অনলাইন ডেস্ক  চলতি বছরের শুরুর দিকে নিজেদের ঢেলে সাজানোর ঘোষণা দিয়েছিলো মোবাইল ফোন ব্র্যান্ড নোকিয়ার মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান এইচএমডি গ্লোবাল। আর সেই ধারাবাহিকতায় নিজেদের ব্র্যান্ডের প্রথম মিলিটারি গ্রেড রাগড স্মার্টফোন আনতে যাচ্ছে প্রতিষ্ঠনটি। এক্সআর২০ মডেলের এই স্মার্টফোনটিকে ‘লাইফ-প্রুফ’ সিরিজের প্রথম ফোন হিসেবে দাবি করেছে নোকিয়া।

এমনটাই জানা গেছে মার্কিন সংবাদ্মাধ্যম সিএনবিএসিতে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে। নিউইয়র্ক টাইমসের বরাত দিয়ে প্রকাশিত ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, এখন পর্যন্ত আপডেটেড পোর্টফোলিওর সবচেয়ে দামি নোকিয়ার নতুন ‘লাইফ-প্রুফ’ ফোনটি। কারণ, ফোনটি পাঁচ ফুট পানির নিচে এক ঘন্টা পর্যন্ত কাজ করতে সক্ষম। অন্যদিকে, ছয় ফুট উচ্চতা থেকে পড়লেও কোনো ধরণের অতিরিক্ত কেস ছাড়াই ফোনটির বিল্ট ইন বডি তা সামলে নিতে পারবে।

এছাড়াও এইচএমডি এর তথ্যানুসারে, সর্বোচ্চ একশ’ ৩১ ডিগ্রি ফারেনহাইট বা ৫৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসে এবং সর্বনিম্ন মাইনাস চার ডিগ্রি ফারেনহাইট বা মাইনাস ২০ ডিগ্রি সেলসিয়াসে ফোনটি কাজ করতে পারে বলে পরীক্ষায় উঠে এসেছে।

এইচএমডি জানিয়েছে, নোকিয়া এক্সআর২০ –এ,স্ক্রিন হিসেবে দেখা মিলবে ,কর্নিং গরিলা গ্লাস ভিকটাস-এর। বলা হচ্ছে, গতানুগতিক স্মার্টফোনের স্ক্রিনের চেয়ে একটি চার গুণ বেশি স্ক্র্যাচ-নিরোধক। এক্সআর২০ ফোনে দেখা মিলবে ৬.৬৭ ইঞ্চি আকারের ২৪০০ x ১০৮০ ডিসপ্লে। চিপ হিসেবে এতে থাকবে স্ন্যাপড্রাগন ৪৮০,ফাইভ জি। দেখা মিলবে ছয় গিগাবাইট র‌্যামের এবং ১২৮ গিগাবাইট স্টোরেজের।

জানা গেছে, ফোনটিতে থাকবে বিল্ট-ইন মাইক্রোএসডি কার্ড স্লট।ক্যামেরা হিসেবে ৪৮ মেগাপিক্সেলের মূল ক্যামেরা থাকবে এক্সআর২০-এ, থাকবে ১৮ মেগাপিক্সেলের সেলফি ক্যামেরা এবং পেছনে থাকবে ১৩ মেগাপিক্সেলের আল্ট্রা ওয়াইড ক্যামেরা।আগামী ২৪ অগাস্ট ব্রিটেনের বাজারে আসবে নোকিয়ার নতুন ‘লাইফ-প্রুফ’ ফোনটি। সাড়ে পাঁচশ’ ডলারের এই ফোনটিতে আরও থাকছে ওয়ারলেস চার্জিং, ১৮ ওয়াটের ফাস্ট চার্জিং, ওজো প্লে-ব্যাক টেকনোলজি এবং নিরাপত্তা বেস্টিত অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম ১১টিএম। যা ২০২৫ সাল পর্যন্ত তার সিকিউরিটি প্যাচ আপডেট করে নিতে সক্ষম।

এইচএমডির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ফ্লোরিয়ান সেইচ বলেন, আমরা গ্রাহকদের ঝোকের যায়গাটা জানার চেষ্টা করেছি। ফোনের দীর্ঘায়ু এবং স্থায়িত্ব নিয়ে তাদের কষ্টগুলো বুঝতে চেষ্টা করেছি। আমরা দেখেছি এখনও অনেক মানুষ আছে যারা একটা ফোনকে দীর্ঘদীন ব্যবহার করতে চান। মুলত তাদেরকে লক্ষ করেই আমরা বাজারে এই স্মার্টফোন নিয়ে এসেছি।

এদিকে নোকিয়ার টুইটার একাউন্ট থেকেও এক ভিডিও পোস্টের মাধ্যমে নতুন ফোনটি কতোটা টেকসই তা-ও দেখানো হয়েছে।