রবিবার, ১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ ইং, রাত ৮:৫১
শিরোনাম :
রাজারবাগ দরবারের কাজে জঙ্গি সম্পৃক্ততা আছে কি না, তদন্তের নির্দেশ দুর্যোগ মোকাবিলায় বাংলাদেশ বিশ্বের রোল মডেল ভোলায় ৫শ পিস ইয়াবা সহ দুই মাদক ব্যাবসায়ী আটক পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী’র পক্ষ থেকে পাঁচশত পারিবারের মাঝে প্রধানমন্ত্রী’র উপহার সামগ্রী বিতরণ ঐতিহ্যবাহী দূর্গা সাগর দিঘি ও কালেক্টরেট পুকুরে পাছের পোনা অবমুক্ত ফুলবাড়ীতে তৃণমুল সাংবাদিকদলের সদস্যদের সাথে মতবিনিময় সভা দেশে করোনায় আরও ৪৩ জনের প্রাণহানি ৫৯টি আইপিটিভি বন্ধ করল বিটিআরসি ই-কমার্সের গ্রাহকদের লোভ কমানোর পরামর্শ দিয়েছেন হাইকোর্ট প্রত্যন্ত অঞ্চলের মানুষের মাঝে নির্ভেজাল পুলিশি সেবা পৌঁছে দিতে হবে : এসপি খাইরুল আলম

রহস্যময়ী নায়িকা পরীমনির ৫ বছরের কারাদণ্ড হতে পারে

বিনোদন ডেস্ক  ঢাকাই সিনেমার আলোচিত ও রহস্যময়ী নায়িকা পরীমনির বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের যে ধারায় মামলা হয়েছে, তাতে একটি ধারায় অপরাধের বর্ণনা অনুযায়ী তার সর্বনিম্ন এক বছর থেকে ৫ বছর সাজা হতে পারে।

আরেকটি ধারা অনুযায়ী, ৬ মাস থেকে এক বছর সাজা হতে পারে। নায়িকার বিরুদ্ধে করা এ মামলায় অপরাধ প্রমাণ হলে, সে অনুযায়ী তিনি এই শাস্তি পাবেন।আলোচিত এই নায়িকা চার দিনের রিমান্ডে রয়েছেন।

গত বুধবার (৪ আগস্ট) রাতে বনানীর বাসা থেকে পরীমনিকে আটক করে র‌্যাব সদরদপ্তরে নিয়ে যাওয়া হয়। ২০ ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ শেষে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বনানী থানায় তাকে হস্তান্তর করে র‌্যাব। এরপর র‌্যাব বাদী হয়ে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা করে। মামলায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের ২০১৮-এর ৩৬ (১) এর সারণি ২৪ (খ)/৩৬(১) এর সারণি ২৯(ক)/৩৬ (১) এর সারণি ১০ (ক)/৪২(১)/৪১ ধারা দেওয়া হয়।

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন ২০১৮ এর ৩৬ (১) এর সারণি ২৪ (খ) ধারায় বলা হয়েছে, মাদকদ্রব্যের পরিমাণ ১০ কেজি বা লিটারের বেশি এবং ১০০ কেজি বা লিটারের কম হলে কমপক্ষে তিন বছর এবং সর্বোচ্চ পাঁচ বছর কারাদণ্ড ও অর্থদণ্ড হবে।

৩৬ (১) এর সারণি ১০ (ক) ধারায় বলা হয়েছে, মাদকদ্রব্যের পরিমাণ সর্বোচ্চ ২০০ গ্রাম বা মিলিলিটার হলে কমপক্ষে এক বছর ও সর্বোচ্চ পাঁচ বছরের কারাদণ্ড ও অর্থদণ্ড হবে। ৪২ (১) ধারায় বলা হয়েছে, কোনো ব্যক্তি যদি এ আইন অথবা বিধির কোনো বিধান লঙ্ঘন করে যাতে স্বতন্ত্র কোনো দণ্ড নেই, তাহলে তিনি ওই অপরাধের জন্য সর্বোচ্চ এক বছর কারাদণ্ড ও অর্থদণ্ডে দণ্ডিত হবেন।

৪১ ধারায় বলা হয়েছে, কোনো ব্যক্তি কোনো মাদকদ্রব্য অপরাধ সংঘটনে কাউকে প্ররোচনা দিলে অথবা সাহায্য করলে অথবা কারও সঙ্গে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হলে অথবা এ উদ্দেশ্যে কোনো উদ্যোগ অথবা চেষ্টা করলে মাদকদ্রব্য অপরাধ সংঘটিত হোক বা না হোক, তিনি সংশ্লিষ্ট অপরাধের জন্য নির্ধারিত দণ্ডের মতো দণ্ড পাবেন।

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিন উদ্দিন মানিক বলেন, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের ২০১৮-এর যেসব ধারায় মামলা হয়েছে তা যদি প্রমাণিত হয় তাহলে তার (পরীমনি) সর্বোচ্চ পাঁচ বছরের শাস্তি হতে পারে।