মঙ্গলবার, ২০শে এপ্রিল, ২০২১ ইং, সকাল ৬:১৩

আলহাজ্ব মকবুল হোসেন কলেজে জাতির জনকের জন্মশতবার্ষিকী পালিত

আব্দুল্লাহ আল হাসিব  আলোচনা সভা, কেক কাটা ও দোয়া মাহফিলের মধ্যে দিয়ে রাজধানীর ঐতিহ্যবাহী আলহাজ্ব মকবুল হোসেন বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী পালন করা হয়েছে।

বুধবার (১৭ মার্চ) সকাল ১১টায় কলেজ অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠানের আয়োজন করে মুজিববর্ষ উদযাপন কমিটি। শর্মিলা চক্রবর্ত্তীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর আ ফ ম রেজাউল হাসান। আলোচনা সভায় কলেজের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। পাশাপাশি জুম ক্লাউড মিটিংয়ের মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা আলোচনা সভায় সংযুক্ত হয়।

এসময় প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বাধীনতা যুদ্ধে বঙ্গবন্ধুর অবদান তুলে ধরে অধ্যক্ষ আ ফ ম রেজাউল হাসান বলেন, বঙ্গবন্ধু আমাদের স্বাধীন রাষ্ট্র উপহার দিয়েছেন যার ফল আমরা এবং আমাদের পরবর্তী প্রজন্ম ভোগ করবে। যারা স্বাধীন বাংলাদেশকে মেনে নিতে পারেনি তারাই বঙ্গবন্ধুর সমালোচনা করেন। তাদের বংশপরম্পরায় গুটিকয়েক লোক স্বাধীনতার ৫০ বছর পরেও সমালোচনা করে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, আমরা এমন একটি প্রতিষ্ঠান নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছি যে প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা এবং তার পরিবার সবাই স্বাধীনতা, মুক্তিযুদ্ধ, বঙ্গবন্ধু এবং তার পরিবারের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। আজকের এই দিনে কলেজ প্রশাসনের পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধুর বিদেহী আত্মার প্রতি মাগফিরাত কামনা করছি। পাশাপাশি কলেজের প্রতিষ্ঠাতা মরহুম আলহাজ্ব মকবুল হোসেন স্যারের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি।

এছাড়াও আলোচনা সভায় বিভিন্ন বিভাগের প্রধানগণ বক্তব্য রাখেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন ট্যুরিজম এন্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগের বিভাগীয় প্রধান সহযোগী অধ্যাপক সৈয়দ মুহাম্মদ ইউসুফ, হিসাববিজ্ঞান বিভাগের বিভাগীয় প্রধান সহযোগী অধ্যাপক অধ্যাপক সফিউদ্দিন বিশ্বাস ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক বিলকিস আক্তার, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ও সহযোগী অধ্যাপক রেহানা বেগম, অধ্যাপক রোজিনা ইয়াসমিন, অধ্যাপক আইনুন্নাহার সুলতানা, অধ্যাপক আজিজুন নাহার, অধ্যাপক নজরুল ইসলাম, সহযোগী অধ্যাপক আব্দুল হাই সরকার প্রমুখ শিক্ষকবৃন্দ।

পরে কলেজ প্রশাসনের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধুর ১০১তম জন্মদিন উপলক্ষে কেক কাটা হয় ও দোয়া মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়। এদিকে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে পুরো কলেজ ক্যাম্পাস জুড়ে আলোকসজ্জা করা হয়েছে।