বৃহস্পতিবার, ২৯শে অক্টোবর, ২০২০ ইং, সকাল ১১:৪৬
শিরোনাম :
মা ইলিশ রক্ষা করতে গিয়ে হামলায় আহত পুলিশ পোলট্রি ও ডেইরি শিল্পের সুরক্ষায় সরকার নীতিমালা তৈরি করছে: প্রাণিসম্পদমন্ত্রী ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের অল্প সুদে ঋণ দিতে বললেন প্রধানমন্ত্রী গণধর্ষণের ঘটনায় পুলিশ কর্মকর্তা রায়হানুল গ্রেফতার ভোলায় এক ঘণ্টার জন্য পুলিশ সুপার হলেন স্কুলছাত্রী রিমি বরিশালে গণনাট্য সংস্থার একযুগ পূর্তি উপলক্ষে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত ঝালকাঠিতে ইলিশ শিকারের দায়ে ভ্রাম্যমান আদালতে দুই জেলের কারাদন্ড হাজী সেলিমের ছেলে ইরফানের বিরুদ্ধে মামলার তদন্তভার ডিবিতে যাচ্ছে হোয়াইট হাউসকে করোনার হট জোন করেছেন ট্রাম্প ট্রাফিক আইন মেনে চলুন, ট্রাফিক পুলিশকে সহায়তা করুন: ডিসি জাকির হোসেন মজুমদার

বরিশালে জলবায়ু সুবিচারের দাবিতে তরুণদের অবরোধ

ডেক্সরিপোর্ট  জলবায়ু সুবিচারের দাবিতে বরিশালে অবরোধ পালন করেছে তরুণরা। বৈশ্বিক জলবায়ু কার্যক্রম দিবসের অংশ হিসেবে সুইডিস পরিবেশকর্মী গ্রেটা থুনবার্গের আহবানে সাড়া দিয়ে এই কর্মসূচি আয়োজন করে ফ্রাইডেস ফর ফিউচার বাংলাদেশ ও ইয়ুথনেট ফর ক্লাইমেট জাস্টিস।

কোস্টাল ইয়ুথ একশন হাব ও আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা একশনএইড বাংলাদেশের সহযোগিতায় বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্যবিধি ও শারীরিক দূরত্ব মেনে প্রতিকূল আবহাওয়াকে উপেক্ষা করে তরুণ জলবায়ুকর্মীরা নগরীর অশ্বিনী কুমার হল প্রাঙ্গণে একত্রিত হয়। পরিবেশবাদী সংগঠন আরণ্যকের সভাপতি কথক বিশ্বাস জয়ের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ মডেল ইয়ূথ পার্লামেন্ট’র চেয়ারপার্সন ফিরোজ মোস্তফা, ইয়ুথনেট ফর ক্লাইমেট জাস্টিসের সমন্বয়ক সোহানুর রহমান, কোস্টাল ইয়ুথ একশন হাবের ম্যানেজার জুবায়ের ইসলাম সহ বিভিন্ন স্বেচ্চাসেবী সংগঠনের সদস্যরা।

বৈশ্বিক উষ্ণায়নের বিরুদ্ধে আরোও জোড়ালো পদক্ষেপ গ্রহণের দাবি জানিয়ে এ সময় বক্তারা বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে মানব জাতি আজ বিপদাপন্ন। এ বৈশ্বিক সংকট মোকাবেলায় তরুণদের ভূমিকা আরও অর্থবহ করতে জাতীয় পর্যায়ে নীতি নির্ধারণ থেকে শুরু করে তা বাস্তবায়ন, সবকিছুতেই তরুণদের সম্পৃক্ত করতে হবে। এছাড়া করোনা প্রণোদনা যেন জলবায়ু-সামঞ্জস্যপূর্ণ উন্নয়নকে সর্মথন করে, সে ব্যাপারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া বাঞ্ছনীয়।

ইয়ুথনেট ফর ক্লাইমেট জাস্টিসের সমন্বয়ক সোহানুর রহমান জানান, জলবায়ু সংকটের কারণে গোটা বিশ্ব ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। বাংলাদেশের উপকূলীয় অঞ্চলে এই ঝুঁকির মাত্রা অনেক বেশি। বিশ্ব নেতৃবৃন্দ এই বিষয়টি আমলে নিচ্ছেন না। জলবায়ু পরির্বতনের ঝুঁকি হ্রাস করতে এসব দেশের অবস্থান সংকীর্ণ। প্যারিস চুক্তি প্রণয়নের প্রায় ৫ বছর অতিক্রান্ত হলেও জলবায়ু পরিবর্তন ও এর প্রভাব মোকাবেলায় কার্যকর কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি। তারা আমাদের ভবিষ্যত ও বর্তমান নিয়ে ছিনিমিনি খেলছে।

তাই ২০২৫ সালের মধ্যেই গ্রিনহাউস গ্যাস নিঃসরণের মাত্রা শুন্যের কোঠায় নামিয়ে আনার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে৷ জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য দায়ী রাষ্ট্রসমূহের কাছ থেকে ক্ষতিপূরণ আদায় ও জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের জন্য আদায়কৃত অর্থ যথাযথভাবে ব্যয় করতে হবে।