বুধবার, ২৫শে নভেম্বর, ২০২০ ইং, সকাল ৮:৪৭
শিরোনাম :
বকশীগঞ্জে উপজেলা প্রশাসনের মাস্ক ব্যবহার কারীদের ফুলেল শুভেচ্ছা ! পটুয়াখালীতে টাকা না দেয়ায় বাবাকে হত্যা, ছেলে গ্রেফতার জনসেবা নিশ্চিত করতে সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোকে আরও শক্তিশালী করে তুলতে হবে: জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী রাশিয়ার করোনার টিকা ৯৫ শতাংশ কার্যকর দাবি বকশীগঞ্জে ঢাকা আহছানিয়া মিশনের প্রকল্প অবহিতকরণ সভা অনুষ্ঠিত স্বর্ণের দাম ভরিতে ২৫০৮ টাকা কমল গোল্ডেন মনিরের মামলা ডিবিতে হস্তান্তর ঢাকায় এল সর্বাধুনিক প্রযুক্তি সংবলিত নতুন উড়োজাহাজ ‘ধ্রুবতারা’ ফ্রান্সের বিরুদ্ধে আন্দোলন, সিঙ্গাপুরে ১৫ বাংলাদেশিকে বহিষ্কার ধর্ম প্রতিমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিলেন ফরিদুল হক

আল্লামা শফীর মৃত্যু পরিস্থিতির বিচার বিভাগীয় তদন্ত দাবি

ডেক্সরিপোর্ট  হেফাজতে ইসলামের আমির ও দারুল উলুম হাটহাজারী মাদ্রাসার সাবেক মহাপরিচালক আল্লামা আহমদ শফীর মৃত্যুকে অস্বাভাবিক আখ্যা দিয়ে এর বিচার বিভাগীয় তদন্ত দাবি করেছেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ সভাপতি আল্লামা মুফতি মুহাম্মদ ওয়াক্কাস।

শুক্রবার বিকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবে ছাত্র জমিয়ত বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় কাউন্সিল ও সদস্য সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ দাবি করেন।

এ সময় আল্লামা শফীর ইন্তেকালের আগের দু’দিন হাটহাজারী মাদ্রাসার ছাত্র বিক্ষোভকে বহিরাগত উসকানি আখ্যায়িত করে এটিরও বিচারের দাবি জানান তিনি।

মুফতি ওয়াক্কাস বলেন, আমি পরিষ্কার করে বলতে চাই আল্লামা আহমদ শফী সাহেবের মৃত্যু স্বাভাবিক ছিল না। কোনো সন্দেহ নেই এর মধ্যে আমার। একটি শক্তি হাটহাজারী মাদ্রাসায় বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করেছে। যার পরিণতিতে আহমদ শফী সাহেবের নির্মম মৃত্যু হয়েছে। যেটা বলব- অস্বাভাবিক মৃত্যু, স্বাভাবিক মৃত্যু ছিল না।

পুরো বিষয়টির বিচার বিভাগীয় তদন্ত দাবি করে মুফতি ওয়াক্কাস বলেন, যদি এটি বিনা বিচারে ছেড়ে দেয়া হয়, তাহলে পুরো কওমি অঙ্গনে বিশৃঙ্খলা ছড়িয়ে পড়বে। আল্লামা শফীর এমন নির্মম মৃত্যু মেনে নেয়া যায় না। এর জন্য আমি বিচার বিভাগীয় তদন্তের দাবি জানাই।

ছাত্র জমিয়তের সহ সভাপতি হাফেজ শাব্বির আহমদ রাজীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন জমিয়ত মহাসচিব মাওলানা শেখ মুজিবুর রহমান, মাওলানা শহীদুল ইসলাম আনসারী, মাওলানা আব্দুল মালিক চৌধুরী, মাওলানা আব্দুল হক কাউসারী, মুফতি জাকির হোসাইন খান, মাওলানা ওয়ালী উল্লাহ আরমান, মুফতি রেজাউল করীম, মাওলানা বেলায়েত ফিরোজী, মুফতি রেদওয়ানুল বারী সিরাজী, মাওলানা আবু বকর সরকার, মাওলানা আব্দুস সালাম, মুফতি কামরুজ্জামান কাসেমী, মুফতি মুশতাক ফোরকানী, মাওলানা হাসান আল মামুন প্রমুখ।

কাউন্সিলে সুহাইল আহমদকে সভাপতি , নিজাম উদ্দিন আল আদনানকে সাধারণ সম্পাদক ও সাজ্জাদ আহমদকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে ৬১ সদস্য বিশিষ্ট কেন্দ্রীয় কমিটি গঠন করা হয়।