শুক্রবার, ১৪ই জুন, ২০২৪ ইং, সন্ধ্যা ৬:১৪
শিরোনাম :
হাইওয়ে পুলিশ প্রধানকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানালেন অতিরিক্ত ডিআইজি মো: খাইরুল আলম হাইওয়ে পুলিশ প্রধান এর সাথে বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি স্বাক্ষর করলেন কুমিল্লা রিজিয়নের অতিরিক্ত ডিআইজি মো: খাইরুল আলম হাইওয়ে পুলিশ এর ১৯ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী অনুষ্ঠিত অতিরিক্ত ডিআইজি মো: খাইরুল আলম এর সাথে কুমিল্লা রিজিয়নের ২২ থানার অফিসার ইনচার্জদের বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি স্বাক্ষর কুমিল্লায় পুলিশ-ম্যাজিস্ট্রেসি কনফারেন্সে অংশ গ্রহণ করলেন হাইওয়ে পুলিশের অতিরিক্ত ডিআইজি খাইরুল আলম স্পেশাল ব্রাঞ্চের অতিরিক্ত আইজিপিকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানালেন হাইওয়ে পুলিশের অতিরিক্ত ডিআইজি মো: খাইরুল আলম বগুড়ায় আইএফআইসি ব্যাংকের সিন্দুক ভেঙে ২৯ লাখ টাকা চুরি বেনজীরের দুর্নীতির তথ্যপ্রমাণ পাওয়া গেছে : দুদক জলবায়ু মোকাবিলায় ‘লোকাল অ্যাডাপটেশন চ্যাম্পিয়নস’ অ্যাওয়ার্ড পেলেন প্রধানমন্ত্রী জম্মুতে হিন্দু তীর্থযাত্রীদের বহনকারী বাসে হামলা, নিহত ১০

বাকেরগঞ্জে কালভার্ট আছে সড়ক নেই

শামীম আহমেদ  ৯৮ লাখ টাকা ব্যয়ে প্রায় একবছর পূর্বে সুবিশাল কালভার্ট নির্মান করা হলেও সংযোগ সড়কের দুইপাশে মাটির কাজ শেষ না করায় স্থানীয় বাসিন্দাদের সুবির্ধার পরিবর্তে চরম ভোগান্তিতে পরতে হয়েছে। বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলার গারুড়িয়া ইউনিয়নের বালিগ্রাম এলাকার।

জানা গেছে, ওই গ্রামের পাশদিয়ে বয়ে যাওয়া তুলাতলি খাল পারাপারের জন্য স্থানীয়দের দীর্ঘিিদনের দাবির প্রেক্ষিতে এলজিইডি বিভাগ থেকে একটি সুবিশাল কালভার্ট নির্মানের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়। স্থানীয় বাসিন্দারা বলেন, তাদের চলাচলের সুবিধার্থে কালভার্টটি নির্মান করা হলেও ঠিকাদার দুইপাশের সংযোগ সড়কে দীর্ঘ একবছরেও মাটির কাজ শেষ না করায় স্থানীয়দের চরম দুর্ভোগে পরতে হয়েছে। সংযোগ সড়কের অভাবে দুই গ্রামের বাসিন্দাদের প্রতিদিন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে খাল পারাপার হতে হচ্ছে।

গ্রামবাসীদের অভিযোগ, কালভার্ট নির্মাণের পর তারা আনন্দিত হলেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অবহেলার কারণে কালভার্টের দুই পাশে সংযোগ সড়কে ঠিকাদার মাটির কাজ না করে ফেলে রাখায় কালভার্টটি এখন তাদের দুর্ভোগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। জনস্বার্থে কালভার্টের দুই পাশের সংযোগ সড়কের জরুরি ভিত্তিতে মাটির কাজ করানোর জন্য ভূক্তভোগিরা সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

সূত্রমতে, ৯৮ লাখ টাকা ব্যয়ে ২০১৯ সালের জানুয়ারি মাসে একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান কালভার্টের নির্মাণ কাজ শুরু করেন। জনগুরুত্বপূর্ণ ওই কালভার্টটি নির্মানের প্রায় একবছর পেরিয়ে গেলেও ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কালভার্টের দুইপাশের সংযোগ সড়কের মাটির কাজ না করে ফেলে রাখে। ফলে কালভার্টটি স্থানীয়দের কোন উপকারেই আসছেনা।